উপজেলা নির্বাচন সেনবাগে আ’লীগের তিন এমপি প্রার্থীর লড়াই


মোঃইব্রাহিম সেনবাগ নোয়াখালী প্রতিনিধি।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে নোয়াখালীর সেনবাগে আ’লীগের তিন এমপি প্রার্থীর চেয়ারম্যান পদে লড়তে মনোনয়ন যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন। তারা হলেন ৯১সালে স্বতন্ত্র ও ২০০১ সালে সেনবাগ আসন থেকে সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী আলহাজ্ব জাফর আহম্মদ চৌধুরী। তিনি পরপর তিনবার উপজেলা আ’লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। পরবর্তী সংসদ নির্বাচনে ও তিনি দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। অপরজন হলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ও তমা গ্রুপের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান ভূইয়া মানিক। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন। একটি বিশ্বস্তসূত্র জানান, চলতি উপজেলা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন ফরম ক্রয় ও জমা নিয়ে নানা গুন্জন শুনাগেলে ও কেন্দ্র থেকে তার দলীয় মনোনয়ন চুড়ান্তের বিষয়টি সময়ের ব্যাপার। আর অন্যজন হলেন সানজি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও শহীদ তরিক উল্যা বীরবিক্রমের পুত্র লায়ন জাহাঙ্গীর আলম মানিক।তিনি গত দুটি সংসদে এমপি পদে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তিনি জেলা আ’লীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে লায়ন জাহাঙ্গীর আলম মানিক চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থী হয়ে অল্প ভোটে বিএনপি প্রার্থীর সাথে হেরে যান।
চতুর্থধাপে অনুষ্ঠিতব্য সেনবাগ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিন প্রার্থী ঢাকার দলীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম তুলে জমা দেয়ার বিষয়টি একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা ধরনা দিচ্ছেন মন্ত্রী এমপি সহ কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে। এর মধ্যে জাফর চৌধুরীর পক্ষের নেতা কর্মীরা মনে করেন দীর্ঘদিন দলের কান্ডারী আলহাজ জাফর আহাম্মদ চৌধুরীই দলীয় মনোনয়ন পাবেন। অন্যদিকে আতাউর রহমান ভূইয়া মানিক সমর্থিত নেতা কর্মীরা মনে করেন তিনি ইতিমধ্যে সেনবাগে নানা সামাজিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আলোচনায় রয়েছেন। দলের প্রয়োজনে জেলা ও কেন্দ্র তাকে মনোনয়ন দিবেই। লায়ন জাহাঙ্গীর আলম মানিক তার নামে একটি মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠা করে দান অনুদান অব্যাহত রেখেছেন। তার সমর্থকরা মনে করেন নিশ্চিত ভাবে তিনিই দলীয় মনোনয়ন পাবেন। দু একদিনের মধ্যে কেন্দ্র থেকে চুড়ান্ত ভাবে প্রার্থীতা ঘোষনার কথা রয়েছে।
একাদশ সংসদ নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো সেনবাগ আসনে আ’লীগ দলীয় এমপি হয়েছেন আলহাজ মোরশেদ আলম। উপজেলা নির্বাচনে তিনি কাকে সমর্থন করেন ইতিমধ্যে তা স্পষ্ট হতে চলেছে।

ভাইসচেয়ারম্যান পদে আ’লীগ নেতা শওকত হোসেন কানন, গোলাম কবির,নুরুজ্জামান চৌধুরী ও ভিপি দুলাল দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ফেরদৌস আরা রুপালী চৌধুরী, মরিয়ম সুলতানা , ফরিদা পারভীন, জেসমিন আক্তার ও বেবী আক্তার মনোনয়ন চেয়েছেন।
আ’ লীগের সাধারন সম্পাদক ও সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গনমাধ্যমকে বলেছেন ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাউকে মনোনয়ন দেয়া হবেনা। তাহলে এখানে যারা মাঠ পর্যায়ে জনপ্রিয় শেষ পর্যন্ত তারাই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন এমন কথাই শোনা যাচ্ছে।
চেয়ারম্যান পদে কেন্দ্রীয় ভাবে কোন অলৌকিক সিদ্ধান্তের বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া যায়না। তাতে অবাক হওয়ার কিছু নেই বলে গুন্জন রয়েছে।
শেষ খবর হলো উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে রাজধানীতে লবিং তদবির থাকলে সেনবাগে এখন পর্যন্ত জোরালো কোনো উত্তাপ দেখা যায়নি।

About alokitonoakhali