কোম্পানীগঞ্জে যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা বরখাস্ত

আলোকিত নোয়াখালী: alokitonoakhali | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ০৩. জানুয়ারি. ২০২০ | শুক্রবার

কোম্পানীগঞ্জে যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা বরখাস্ত

প্রতিবেদক: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আ.ক.ম মহসিনকে তার পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের মহা-পরিচালকের ৩১ডিসেম্বর স্মাক্ষরিত স্মারক নং-৩৪.০১.০০০০.০০৭.২৭.০৩৩.২০১৯-১৭৬ নং এর আদেশ মূলে তাকে সরকারি ৫০ লক্ষ টাকা আত্মসাত করার উদ্দেশ্যের কর্মকান্ডের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এ বরখাস্ত আদেশ দেয়া হয়।নোয়াখালী যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক, জসিম উদ্দিন আহমেদ খান মুঠোফোনে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আ.ক.ম মহসিনকে বরখাস্তের সত্যতা নিশ্চিত করেন।জানা যায়, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আ.ক.ম মহসিন, নোয়াখালী জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ক্যাশিয়ার ছাবিনা ইয়াছমিনের স্বাক্ষর জালপূর্বক সরকারি ৫০ লক্ষ টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে গত ১৭ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে একই ব্যাংকে তার নিজ নামিয় চলমান সঞ্চয়ী হিসাব নং-২৬০৭-০৩১১০৮৪৭০-০ তে স্থানান্তর করেন। পরে বিভিন্ন মেয়াদে মহসিন উক্ত সঞ্চয়ী হিসাব হতে ২১লক্ষ টাকা উত্তোলন পূর্বক আত্মসাত করেন। প্রক্রিয়াগত ভাবে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ বিভাগীয় প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। তার অসৎ উদ্দেশ্যে এ ধরনের অপকর্মের কারণে সরকারি কর্মচারী (শৃংখলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর ১২ (১) বিধি অনুসারে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আ.ক.ম মহসিনকে সরকারি চাকুরী হতে বরখাস্ত করা হয়েছে। আদেশে উল্লেখ করা হয় জনস্বার্থে এ আদেশ জারী করা হলো। প্রসঙ্গত, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক বসুরহাট শাখায় যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আ.ক.ম মহসিন ও ক্যাশিয়ার ছাবিনা ইয়াছমিনের যৌথ স্বাক্ষরে চলতি হিসাব নং-২৬০৭-০২১০০০৪৭২৮ পরিচালিত হচ্ছে। গত ৫ নভেম্বর তারিখে ক্লিয়ারিং হাউজের মাধ্যমে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের স্থানীয় মূখ্য শাখা হতে ভুল বশত ৫০ লক্ষ টাকা উক্ত চলতি হিসাবে স্থানান্তর জমা করা হয়। ওই টাকা আ.ক.ম মহসিন কৃষি ব্যাংক বসুরহাট শাখায় নিজ ব্যাক্তিগত একাউন্টে আত্মসাতের উদ্দেশ্যে স্থানান্তর করেন। উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আ.ক.ম মহসিন মুঠোফোনে জানান, আমি শুনেছি, তবে বরখাস্তের আদেশের অফিস কপি এখনও হাতে পাইনি।

এই বিভাগের আরো খবর Posts