নোয়াখালীতে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সমাবেশ

আলোকিত নোয়াখালী: Senior Editor | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ১৩. অক্টোবর. ২০২০ | মঙ্গলবার

নোয়াখালীতে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সমাবেশ

 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুরের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় ওই এলাকায় পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে এবং ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) সকাল ১১টায় নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে এ কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করেন শিক্ষক, মানবাধিকার ও নারী অধিকার কর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধিগণ।

এ সময় বক্তব্য রাখেন-নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আলমগীর ইউসুফ, সাংবাদিক সমিতির মহাসচিব মনিরুজ্জামান চৌধুরী, দৈনিক সচিত্র নোয়াখালী সম্পাদক আমিরুল ইসলাম হারুন, দৈনিক যায়যায়দিনের স্টাফ রিপোর্টার ও বিডিনিউজের জেলা প্রতিনিধি আবু নাছের মঞ্জু, ডিবিসির জেলা প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান চৌধুরী কাজল, চ্যানেল ২৪ প্রতিনিধি সুমন ভৌমিক, দৈনিক নোয়াখালী বার্তা সম্পাদক অহিদ উদ্দিন মুকুল ও দৈনিক ভোরের কাগজ প্রতিনিধি মোহাম্মদ সোহেল প্রমুখ। বক্তারা পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানান।

আরও পড়ুন: বশেমুরবিপ্রবির এক ছাত্রীসহ মা-বোনকে গণধর্ষণের হুমকি, থানায় জিডি

সোমবার সাড়ে ১২টার দিকে নিউজ ২৪ ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি আকবর হোসেন সোহাগসহ তিন সাংবাদিক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় জয়কৃষ্ণপুর গ্রামে সংবাদ সংগ্রহ করতে কাজে যান। তারা এ ঘটনায় জড়িতদের সম্পর্কে বিভিন্ন লোকজন থেকে তথ্য সংগ্রহ করে গ্রেফতারকৃত স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার মোয়াজ্জেম হোসেন সোহাগের বাড়ির সামনের সড়ক দিয়ে আসার সময় তার অনুসারীদের হামলার শিকার হন।

এসময় মেম্বারের সহযোগী বাবুল মিয়া, মিঠু, জয়নাল, আজাদ, রাসেলসহ একদল যুবক তাদের বহনকারী মাইক্রোবাসের গতিরোধ করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে এবং নিউজ ২৪ এর ক্যামেরাম্যান মেহেদি হাসান ও চ্যানেল এস এর জেলা প্রতিনিধি ইমাম উদ্দিন সুমনকে মারধর করে। এক পর্যায়ে তারা একটি ক্যামেরা ও অন্য একটি ক্যামেরার মেমোরি ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এসময় হামলাকারীদের বাধা দিতে এসে হেনস্তার শিকার হন জেলা আয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাসেম জিএস। এ ঘটনায় ওইদিন সন্ধ্যায় সাংবাদিক আকবর হোসেন সোহাগ জড়িত ১১জনের বেগমগঞ্জ মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এই বিভাগের আরো খবর Posts