ফুলগাজী-পরশুরামের ১৫টি গ্রামে ঈদের আনন্দে বন্যার বিষাদ


ভারতীয় পাহাড়ি ঢলের পানির চাপে ফেনীর ফুলগাজী বাজারসহ ১০টি গ্রাম এবং পরশুরামের ৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। মুহুরী নদীর ফুলগাজীর ৬টি অংশে এবং পরশুরামে দুইটি অংশে ভাঙন সৃষ্টি হয়। যার ফলে এই দুই উপজেলার প্রায় ১৫’শ পরিবারের এবারের ঈদ উৎসব ম্লান। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতরের পূর্ব মুহূর্তে এই ধরনের দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের মুখের হাসি বিষাদে পরিণত হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন ও ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, ফুলগাজী ও পরশুরাম উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে গেছে তিনটি নদী। মুহরী, কহুয়া ও সিলোনীয়া নদী। এই তিনটি নদীই তাদের জীবনের জন্য অভিশাপ। গত চার দিনে ৮ টি স্থানে বাঁধ ভেঙে ১৫ গ্রাম প্লাবিত হয়। নষ্ট হয়ে যায় আমনের বীজতলা। এটি শুধু এবছরই নয় প্রতিবছরই প্লাবিত হয় গ্রামের পর গ্রাম। ক্ষতিগ্রস্তরা ঈদ উদযাপনতো দূরে থাক বাড়ি-ঘরে থাকার মতোও পরিবেশ নেই। অনেকে নিজের ছেলে-মেয়কে পাঠিয়ে দিয়েছে অন্যত্র। এসব পরিবারের মধ্যে সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে ফুলগাজী সদর ইউনিয়ন ও পরশুরামের চিথলিয়া ইউনিয়ন। বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এসময় তারা প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।
ফুলগাজী সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা সকিনা আক্তার জানান, ‘আমাদের জন্য ঈদ আসেনি। ঘরে থাকতে পারছিনা আবার কিসের ঈদ। রাতে সাপের ভয়। থাকার ঘর, পাক ঘরে পানি। একই এলাকার আবুল হাসেম জানান, কৃষকদের আমনের বীজতলা নষ্ট হয়ে গেছে।

একই ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের বাসিন্দা নুরুল আলম জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদাসীনতার কারণে সারা বছর আমরা দুর্ভোগে থাকি। এটার স্থায়ী সমাধান দরকার।

এদিকে জেলা প্রশাসক মনোজ কুমার রায় জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তদের পর্যাপ্ত ত্রানসামগ্রী মজুদ রয়েছে। যাতে করে কোনো ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার কষ্ট না করে সেদিকে খেয়াল রাখা হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. কোহিনুর আলম জানান, নদীর সন্নিকটে বাঁধ থাকায় বেডিবাঁধে ভাঙন দেখা দিয়েছে। পানি সরে যাওয়া মাত্রই বাঁধটি সংস্কার করা হবে।

Facebook Comments

About editor

x

Check Also

ফেনীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত

ফেনীতে র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় সদর উপজেলার সুলতানপুর ও বুধবার ভোরে লেমুয়ায় পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’র ...