সোনাইমুড়ীর প্রবাসী শাহ আলম আরজু হত্যার নেপথ্যে স্ত্রীর পরকীয়া!


নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার জুনদপুর গ্রামের প্রবাসী শাহ আলম আরজু হত্যার নেপথ্যে ভাগিনার সাথে স্ত্রীর পরকীয়া। হত্যাকাণ্ডের দীর্ঘদিনেও আসামিরা গ্রেফতার না হওয়ায় ন্যায় বিচার নিয়ে শঙ্কিত ও ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। আসামি গ্রেফতারে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। আরজু হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে স্থানীয়রা। তবে আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, জুনদপুর গ্রামের শাহ আলম আরজু দীর্ঘদিন প্রবাসে থাকার সুবাধে তারই ভাগিনা রনির সাথে স্ত্রী সিমা আক্তার পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। বিষয়টি আরজু জানতে পেরে দেশে চলে আসেন। তিনি দেশে এসে স্ত্রীকে নানা ভাবে বুঝিয়েও পরকীয়া থেকে ফেরাতে পারেননি।

এদিকে মামা আরজু হঠাৎ দেশে আসায় ভাগিনা রনিও তার উপর চরম ক্ষুব্ধ হয়। তাই পথের কাটা সরাতে চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি রাতে স্ত্রী সিমা আক্তার, ভাগিনা রনি ও তার কয়েকজন সহপার্টি আরজুকে হত্যা করে অসুস্থ হয়ে মারা গেছে বলে প্রচার চালায়। এরপর দিনই নিহতের হত্যাকারীরা এলাকাবাসীকে না জানিয়ে কৌশলে ভাড়াটে লোকজন নিয়ে তড়িঘড়ি করে আরজুর লাশ বাড়ির সামনের দাপন করে।

বিষয়টি এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে তারা সোনাইমুড়ী থানা পুলিশকে জানায়। থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার বা অভিযুক্তদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের কোন উদ্যোগ না নেয়ায় এলাকাবাসী হতাশ হয়। তারা আরজু হত্যার রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন, সাংবাদিক সম্মেলন ও ফেসবুকে ব্যাপক লেখালেখি করে। একপর্যায়ে এলাকাবাসীর পক্ষে ইউপি সদস্য বাবলু আহমেদ বাদী হয়ে নিহতের স্ত্রী সিমা আক্তার ও পরকীয়া প্রেমিক ভাগিনা রনিসহ ৩ জনকে আসামি করে আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। আদালতের নির্দেশে গত ৮ ফেব্রুয়ারি পিবিআই আরজুর লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করলেও এখনো ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ও ভিসেরা রিপোর্ট প্রকাশ হয়নি।

এদিকে আরজু হত্যার রহস্য উদঘাটন ও মামলার আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে হতাশ এলাকাবাসী। তারা হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ, যারা এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত তারা হত্যার ঘটনায় প্রতিবাদকারীদের বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছে। আরজু হত্যাকারীদের বিচার দাবি করে তার হতভাগা মা জানান, আমি আমার সন্তানের হত্যাকারীদের উপযুক্ত শাস্তি চাই।

পিবিআই মামলাটি সঠিক তদন্ত করছেনা ও আাসামি গ্রেফতারে তৎপর নয় বলে অভিযোগ করে মামলার বাদী ও ইউপি সদস্য বাবুল আহমেদ বলেন, পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় আমরা হতাশ। আমরা চাই পুলিশ যেন আসামিদের দ্রুত গ্রেফতার করে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান মামলারতদন্ত কর্মকর্তা ও পিবিআই এর পরিদর্শন আসাদুজ্জামান আসাদ।

অভিযুক্ত নিহত আরজুর স্ত্রী সিমা আক্তার ও ভাগিনা রনির বক্তব্য নেয়ার জন্য তাদের বাড়িতে গেলে পাওয়া যায়নি। বাড়ির লোকজন জানায়, আরজু নিহত হওয়ার পর থেকেই পালাতক রয়েছে তারা। এমতাবস্থায় আলোচিত আরজু হত্যারহস্য উদঘাটন ও অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করবে প্রশাসন এমনটাই প্রত্যাশা স্থানীয়দের।

Facebook Comments

About editor

x

Check Also

চাটখিলে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ৩০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি

Facebook Comments