সাম্প্রতিক




চাটখিলে জামায়াত নেতার ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে তোলপাড়

আলোকিত নোয়াখালী: editor | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ০৩. ফেব্রুয়ারি. ২০১৫ | মঙ্গলবার

চাটখিলে জামায়াত নেতার ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে তোলপাড়

সাইফুল ইসলাম রিয়াদঃ জামায়াতে ইসলামীর চাটখিল উপজেলার শীর্ষ নেতা আইকাব গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ উল্লাহ এমএসসির ফেসবুকে নিজ ওয়ালে করা এক রাজনৈতিক স্ট্যাটাস পুরো উপজেলায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। গত কয়েকদিন আগে দেয়া তার স্ট্যাটাসটি আলোকিত নোয়াখালীর পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হল।

চাটখিলে আটক কয়েকজন বিএনপি বন্ধু, গ্রেফতার হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ছাড়া পেলেন। খুশির বিষয়। আলহামদুলিল্লাহ্। কিন্তু, কিভাবে?
পথটা যদি জোটের বন্ধুদেরও জানাতো। জামায়াত-শিবিরের যারা গ্রেফতার হচ্ছেন তাদের বের করা বা আইনি সহায়তাদানের জন্য জামায়াতের প্রত্যেক এলাকায় কয়েকজন নির্ধারিত লোক থাকেন। জনশক্তি, শুভাকাংখীদের মাসিক দেয়া অর্থ খরচ করেই ওনারা কাজ করেন। তাই, অন্যকারো আর এ ব্যাপারে কাজ করার কোন
সূযোগও থাকেনা এবং প্রয়োজনও হয় না। চাটখিলে আমার প্রতিষ্ঠানের একজন গ্রেফতার হয়েছে গত ২৮শে জানুয়ারি। উপরোক্ত কারণে আমার করার কিছু ছিলনা। তারপরও আমি ঢাকা থেকে তাকে বের করার জন্য একটা উদ্যোগ নিয়েছিলাম। কয়েকজনকে
ধরেছিলাম। কিছু খাদ্য দেয়ার ঘোষণাও দিয়েছিলাম এবং তার পরিমাণও জানিয়েছিলাম। কিন্তু, সবখান থেকে জানানো হলো কোনভাবেই তাকে থানা থেকে বের করে অানা সম্ভব নয়। এ থানা এত জালিম, হাসপাতাল থেকে ডাক্তার গ্রেফতার করে, অথচ হাসপাতালে রুগি, এমন মানবিক কারণেও ডাক্তারদের ছাড়েনি। সেজন্যই বলেছিলাম, বিএনপি-র ভাইয়েরা যদি পথটা আমাদের জানাতেন? ৩০/০১/২০১৫.

স্ট্যাটাসটি দেয়ার পর এতে প্রচুর লাইক কমেন্ট পড়ে এবং বেশ কয়েকবার শেয়ার হয়। তবে এই ব্যাপারে বিএনপির পক্ষ থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য যে, গত সপ্তাহে গ্রেফতার হওয়া নেতাদের দেখতে গিয়ে মাইজদিতে জেল গেটে উপজেলা বিএনপি নেতা দেওয়ান শামসুল আরেফিন শামীম, আহসানুল হক মাসুদ,আনিছ আহমেদ হানিফ সহ ৫ জন গ্রেফতার হয়। গ্রেফতারের কয়েক ঘণ্টা পর তারা এবার ছাড়া পেয়ে যায়। এই ঘটনায় চাটখিল উপজেলা বিএনপির শীর্ষ নেতাদের সাথে সরকারী দলের সাথে লিয়াজর যে গুজব ছিল তা নতুন করে আলোচনায় চলে আসে।

এই বিভাগের আরো খবর Posts